বা ঙা ল না মা

নিষিদ্ধ নামের সন্ধানে – একটি আপৎকালীন পরিশিষ্ট

Posted by bangalnama on August 31, 2009


(দ্বিতীয় কিস্তির পর)

সলতে পাকানো: জনৈক সাংবাদিক একবার গোদার-কে জিজ্ঞাসা করেছিলেন, “মিঃ গোদার, আপনার কি মনে হয় না যে একটা ফিল্মের মাথা, তার পর ধড় এবং সব শেষে একটা ল্যাজ থাকা উচিত?”

অস্তিত্ববাদী দৃষ্টিভঙ্গী থেকে ডাইভ মেরে মাওবাদী দর্শনে পৌঁছনো চিত্রনির্মাতা জবাব দিয়েছিলেন, “নিশ্চয়ই, তবে আপনি যে ভাবে পর পর বললেন, ব্যাপারটা সেই ভাবে নাও ঘটতে পারে।”

কৈফিয়ৎ এবং আরো কিছু: সম্পাদকমন্ডলীর কাছে অঙ্গীকারবদ্ধ ছিলাম যে কমরেড সরোজ দত্তর জীবনের বিবিধ ডাইমেনশনগুলো একে একে লিখে হাজির করব পাঠক কুলের কাছে। ছকটাও সাজিয়েছিলাম সেই ভাবে; কিন্তু বিপদের একশেষ! আমার ‘অপার্থিব’ ল্যাদ এবং ভ্রমণ-প্রীতি (খানিকটা বাধ্যতামূলক ভাবেই) সেই চিন্তায় জল ঢেলে দিল। অগত্যা সম্পাদিকাদ্বয়ের কাছে ‘পার্থিব’ ঝাড়! যাইহোক, মাথা নামক আকরিক-এ জমে থাকা জং ছাড়াতে বাধ্য হলাম বাঙালনামার ‘অগস্ট’ সংখ্যার কথা ভেবে। অগস্ট; সেই মাস যার ৪-৫ তারিখে গিন্নির ডোবারম্যানের বাহিনী শ্রমিক-কৃষকের আন্দোলনকে জলাতঙ্কগ্রস্ত করে তোলার জন্যে নির্মম ভাবে হত্যা করেছিল ‘মূর্তি ভাঙার কারিগর’কে।

অধ্যাপক দেবী প্রসাদ চট্টোপাধ্যায়ের বাড়ি (শেল্টার) থেকে ৭১-এর চৌঠা অগস্ট রাত সাড়ে-এগারোটা নাগাদ কমরেড সরোজ দত্তকে তুলে নিয়ে গিয়েছিল রুণু-দেবী-তারাপদ’রা। পরদিন ভোর-রাতে তাকে আরিয়ানস্ ময়দানে গুলি করে মাথাটা কেটে নিয়ে প্রমাণ লোপের চেষ্টাও করেছিল নিক্সন-ব্রেজ়নেভের ভাড়াটে বাহিনী। কিন্তু “পাপ কি কখনো ছাই চাপা থাকে? যাকে ভাবো মূক…..তার অবিনশ্বর আত্মা চীৎকার করে ওঠে….” সরকারী খাতায় যদিও সরোজ দত্ত আজও ফেরার। ৭৭-এর প্রতিশ্রুতি ২০০৯ সালেও পালিত হলনা। ২০১১ তে? পাগল! বৌমার জোটসঙ্গী ওদিকে কর্ণপাত বা নেত্রপাত, কোনোটাই করবেন না! মুখ্যমন্ত্রীত্ব বড় বালাই!

যাইহোক, এটা বলাই বাহুল্য যে কমরেড সরোজ দত্তর অনুগামীরা চানও না কোনো সরকারী শিলমোহর। সরকার এবং রাষ্ট্র, এই দু’টো অত্যাচার যন্ত্রের বিরুদ্ধে যার আজন্ম লড়াই, তাকে সরকারী কেতাবে ‘মর্যাদা’ প্রদান করা হবে ভাবলেই গোটা শরীর ঘৃণায় সঙ্কুচিত হয়ে ওঠে। যখন দেখি ‘বিপ্লব’ ‘নকশালবাড়ি’ ইত্যাদির নাম ব্যবহার করে কোনো কোনো গোষ্ঠী ‘মানবাধিকার কমিশন’ নামক সরকারী আস্তাকুঁড়ের দ্বারস্থ হন, তখন কমরেড সরোজ দত্তর মতই বলতে ইচ্ছে করে, “শুয়োরের বাচ্চাদের দাঁতের পাটি খসিয়ে দি।”

কবি-ইন্টেলেকচুয়াল-সাংবাদিক সরোজ দত্ত-কে পুলিশ কেন খুন করল, এটা অনেকেই ভেবে পান না। কানু সান্যাল বা সন্তোষ রাণা’রা তো সরাসরি যুদ্ধেই অংশগ্রহণ করেছিলেন, তার পরেও তো তাদের বাঁচিয়ে রেখেছিল রাষ্ট্র। কিন্তু সরোজ দত্তর বেলায় কেন…….?

উত্তরটা মধ্যবিত্ত বিপ্লববিলাসী কিভাবে ইন্টারপ্রেট করবেন জানিনা, তবে আমার মনে হয়, মধ্যবিত্তের দার্শনিক ইমারতটা ভেঙে চুরমার করে দেবার কারণেই ওনার এই পরিণতি। সরোজ দত্ত জানতেন যে বিপ্লব একটা প্যারাডাইম শিফ্ট, এবং চূড়ান্ত পর্বে সেটা মননে। সহস্র বছরের ফিউডাল সাংস্কৃতিক হেজিমনি-কে ভেঙে নতুন প্রলেতারিয়েত হেজিমনি গড়ার পথেই এগোচ্ছিলেন তিনি। আর তাই তো তার চলার পথ রুদ্ধ করে দেওয়া হল। হল কি?

কমরেড সরোজ দত্ত শহীদ হওয়ার পর কমরেড চারু মজুমদার ঘোষণা করেছিলেন: “কমরেড সরোজ দত্ত পার্টির নেতা ছিলেন এবং নেতার মতই তিনি বীরের মৃত্যু বরণ করেছেন।” হ্যাঁ, সরোজ দত্ত নেতা ছিলেন, এমন একজন নেতা যিনি স্ত্রী’র মুখে সাবধানে থাকার পরামর্শ শুনে উত্তর দিয়েছিলেন: “এইডা কি কইলা বেলা! যুদ্ধে কি শুধু বাহিনী মরব! আরে দুই একডা সেনাপতিরও তো জ়ান যাইব!” নির্মম ভবিষ্যৎ দ্রষ্টা।

শহীদ স্মরণে লিখতে গিয়ে কমরেড চারু মজুমদার বলেছিলেন: “শ্রমিক এবং দরিদ্র ভূমিহীন কৃষকের সাথে একাত্ম হয়ে এই হত্যাকান্ডের বদলা নিতে হবে।” প্রায় চার দশক হতে চলল, হত্যাকারীরা আজও হায়না হয়ে তাজা রক্তের সন্ধানে রাস্তায় রাস্তায় ঘু্রে বেরাচ্ছে। অন্যদিকে নিরীহ কৃষকের গলা কেটে ‘ওনারা’ বিপ্লব করছেন। কারণ ‘ওদের’ কাছে পার্টিটা শত্রু ! চারু মজুমদার থেকে সরোজ দত্ত, শ্রেণীর ওপর জোর দিতে বলেছিলেন। কিন্তু অতীতের ‘ভুল’ ঠিক করার নামে নব্য ‘বিপ্লবীরা’ বিরোধী পার্টির ওপর অধিক দৃষ্টি নিক্ষেপ করায় (সাথে আরো কত কি হাইটেক…..তাই না কিষেণজী?) মরছে নিরীহ কৃষক; হেসে খেলে বেরাচ্ছে ‘৭০-‘৭১ এর হায়নাগুলো। তবু আশাহত নই, বিশ্বাস হারানো যে পাপ!

(চলবে)

লিখেছেন – বাসু আচার্য্য

[প্রিভিউ: পূর্বে প্রকাশিত কমরেড সরোজ দত্তের মৌলিক কবিতা ও কবিতা অনুবাদ নিয়ে আলোচনার পর এই মধ্যবর্তী গোদারীয় পরিশিষ্টের পরবর্তীতে, অর্থাৎ আগামী সংখ্যাগুলিতে লেখকের পরিকল্পনা মাফিক থাকবে 'কমরেড সরোজ দত্তের মৌলিক ও অনূদিত গদ্য', 'সাংবাদিক সরোজ দত্ত', 'রাজনীতিবিদ সরোজ দত্ত', ও সর্বশেষ, 'ইতিহাস ও সরোজ দত্ত'। - সম্পাদক]

About these ads

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

 
Follow

Get every new post delivered to your Inbox.

Join 62 other followers

%d bloggers like this: